০১৮১৮-৬৭৬৪৬০

lsdcollegectg@gmail.com

লতিফা সিদ্দিকী ডিগ্রি কলেজ

EIIN: 105114

ছোট কুমিরা, সীতাকুণ্ড, চট্টগ্রাম

অধ্যক্ষ পরিচিতি

অধ্যক্ষ শিমুল বড়ুয়া পুরস্করপ্রাপ্ত লেখক, গবেষক, শিক্ষাবিদ ও সুবক্তা। তিনি একজন নিষ্ঠাবান প্রাবন্ধিক ও পরিশ্রমী গবেষক। প্রচারবিমুখ নিভৃতচারী এই লেখক ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ গবেষণা কর্ম সম্পাদন করে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন।

তাঁর রচিত ও সম্পাদিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে : ১. অনোমা: রজতজয়ন্তী স্মারকগ্রন্থ (২০০৮), ২. কবিয়াল ফণী বড়ুয়া স্মারকগ্রন্থ (২০১০), ৩. ছড়াসাহিত্যিক সুকুমার বড়ুয়া সম্মাননাগ্রন্থ (২০১১), ৪. ‘করুণাঘন ধরণীতল কর’ কলঙ্কশূন্য (রবীন্দ্রমননে-সৃজনে বুদ্ধ), ৫. বাংলার বৌদ্ধ ইতিহাস-ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি (২০১২), ৬. চাটগাঁ ভাষার রূপ-পরিচয় (যৌথ সম্পাদিত) (২০১২), ৭. চিরঞ্জীব বিপ্লবী বিনোদ বিহারী চৌধুরী স্মারকগ্রন্থ (যৌথ সম্পাদিত) (২০১৪), ৮. ভারততত্ত্ববিদ আচার্য ড. বেণীমাধব বড়ুয়া স্মারকগ্রন্থ (২০১৪), ৯. কর্মযোগী কৃপাশরণ মহাস্থবির স্মারকগ্রন্থ (২০১৫), ১০. রবীন্দ্রজীবনে ও সাহিত্যে চট্টগ্রাম (২০১৬), ১১. চট্টগ্রামের প্রবাদ-প্রবচন (২০১৭), ১২. বেণীমাধব ও উত্তরাধিকার (২০১৯), ১৩. একুশে পদক প্রাপ্ত শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. বিকিরণ প্রসাদ বড়ুয়া সম্মাননাগ্রন্থ (২০২০)। প্রকাশের পথে ‘মানবপুত্র বুদ্ধচিন্তনে-জাগরণে’। তাঁর লেখালেখি ও গবেষণার স্বীকৃতিস্বরূপ পেয়েছেন অনেক পুরস্কার ও সম্মাননা। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য : ‘বাংলার বৌদ্ধ ইতিহাস-ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি’ গ্রন্থের জন্য জাতীয় পর্যায়ে ‘আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্য পুরস্কার ২০১২’, ‘রবীন্দ্রজীবনে ও সাহিত্যে চট্টগ্রাম’ গ্রন্থের জন্য সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠাপোষকতায় যশোর জেলা প্রশাসন প্রবর্তিত ‘মহাকবি মধুসূদন পদক ২০১৮’।

চট্টগ্রাম কলেজে প্রগতিশীল ছাত্ররাজনীতির সান্নিধ্যে আসার পর অনন্যনিষ্ঠা লেখক-গবেষক দূরদৃষ্টিসম্পন্ন সমাজ-সংস্কৃতিকর্মী অধ্যাপক শিমুল বড়ুয়ার চেতনায় রোপিত হয়েছিল প্রাগ্রসর চিন্তার বীজ। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে অনার্সসহ এমএসএস ডিগ্রি অর্জন করেন। গত শতকের শেষ দশকের শুরুতে অধ্যাপনাজীবন শুরু করার পর লেখায় হাত দিলেন; বস্তুত ইতিহাস-ঐতিহ্যঋদ্ধ সংস্কৃতিজগতে বিচরণ করতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।
অধ্যক্ষ শিমুল বড়ুয়ার জন্ম ১৮ জানুয়ারি ১৯৬৬, উত্তর গুজরা, রাউজান, চট্টগ্রামে ।